বিএনপিমুক্তিযোদ্ধা দললীড

ভারতকে ফাইনাল ওয়ার্নিং দেয়া দরকার: ডা: জাফরুল্লাহ

বৃহস্পতিবার ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০।। ১৬.৩০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ভারতকে একটা ফাইনাল ওয়ার্নিং দেয়া দরকার বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে অর্থনৈতিকভাবে পর্যুদস্ত করতে ভারত ষড়যন্ত্র করছে।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এই অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, ভারত নজর দিয়েছে কী করে বাংলাদেশকে অর্থনৈতিকভাবে পরযুদস্ত করে যায়? তারা ষড়যন্ত্র করছে।

সেজন্য তারা সকল আন্তর্জাতিক নিয়মাবলী অস্বীকার করে হঠাত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে। এভাবে চলতে পারে না।

ভারতকে একটা ফাইনাল ওয়ার্নিং দেয়া দরকার। আমাদের এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। চলুন আমরা সবাই একত্রিত হয়ে ভারতের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই।

আরো পড়ুন: ভারতীয়দের সাহায্যে বিএনপি কখনোই ক্ষমতায় আসতে পারবে না: ডা. জাফরুল্লাহ

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল ও মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের উদ্যোগে পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি ও

সরকারের নতজানু পররাষ্ট্র নীতির প্রতিবাদে এই মানববন্ধন হয়। এতে ভারত বাংলাদেশের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধসহ সরকারের গুম-খুনের প্রতিবাদে বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড বহন করে নেতা-কর্মীরা।

আড়াই মিনিট বক্তব্যের পরপরই প্রচন্ড গরমে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী অসুস্থ হয়ে পড়লে ফুটপাতে বসে পড়েন। পরে নিজের প্রাইভেট কারে করে তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়।

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ভারতকে পরিস্কারভাবে আমাদের বলা দরকার, ট্রানজিট হবে না, ইয়ে হবে ….। তাদেরকে শিক্ষা দেয়ার জন্য ট্রানজিট বন্ধ করতে হবে।

আমাদেরকে সংঘবদ্ধভাবে তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে হবে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, তারা মিডিয়া বন্ধ করেছে। খালেদা জিয়াকে গুলশানে আর হাসিনাকে আমলা এবং ‘র’ (ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা) অনুসারী দ্বারা পরিবেষ্টিত করে বন্দি করে রেখেছে।

এভাবে চলতে পারে না। এর বিরুদ্ধে ভারতকে সমচিত জবাব দিতে হবে।

নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, দেশে সমস্ত জিনিসের দাম বেড়েছে। দেশে কোনো বিনিয়োগ নাই, দেশে কোনো শিক্ষা ব্যবস্থা নাই।

কোনো স্কুল খুলে না, কলেজ খুলে না, বিনা পরীক্ষায় পাস। দেশের অর্থনীতির অবস্থা কী? সরকারের কাছে টাকা নাই।

সরকারের প্রধানমন্ত্রী বলছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে কিছু টাকা দাও। সবাই বলছে থুককু। রিজার্ভ থেকে কি টাকা দেয়া যায়, কেউ দেয় না কখনো।

আপনি নিলে খুব বদনাম হবে। এখন কোনো কথা বলছেন না। কি করবে? তাদের কাছে টাকাই তো নাই।

মান্না বলেন, একটা দেশ বছরে যদি এক লক্ষ টাকা বিদেশে পাচার করে ওই টাকা ধরতে যায় না।

ফরিদপুরের ছাত্রলীগের প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারি মাত্র দুই বছরে দুই হাজার কোটি টাকা কামাই করেছে- বিশ্বাস করেন।

চোর ওরা, ডাকাত, লুটেরা, দেশের টাকা লুটপাট করে বিদেশে পাঠাচ্ছে … । এই সরকার শুধু ক্ষমতার সাথে আর জনগণের বিপক্ষে।

তিনি বলেন, দেশ একটা বিরাট ষড়যন্ত্রের জ্বালের মধ্যে। এই ষড়যন্ত্রের জ্বাল থেকে যদি বেরুতে হয় তবে জ্বালটাই ছিঁড়ে ফেলতে হবে। তা না হলে পারবেন না।

একটাই কথা তা হচ্ছে, কারো দিকে তাকিয়ে থেকে নয়, কে রাস্তায় নামলো, কে সমর্থন দিলো এই হিসাব পরে করেন।

ডাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, যে দাবি এই সরকারকে সরানো ছাড়া আপনি কিছু করতে পারবেন না। সেই কর্মসূচি নিয়ে আমরা সবাইকে সংগঠিত করে রাজপথে নামি।

প্রস্তুত হউন, সংঘবদ্ধ হউন, আমাদের বিজয় হবেই। এই সরকারকে একটাই কথা- তুমি চলে যাও, তুমি পারছো না দেশ চালাতে..।

আরো পড়ুন: গণতন্ত্র ফেরাতে ইস্পাত কঠিন ঐক্য দরকার: ফখরুল

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, এই সরকার বলে ভারতে সাথে বাংলাদেশের রক্তের সস্পর্ক।

অথচ ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে প্রায়শঃই মানুষ হত্যা করা হচ্ছে যা পৃথিবীর অন্যকোনো দেশের সীমান্তে এভাবে মানুষ হত্যা হয় না।

আজকে থেকে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত সম্মেলন শুরু হয়েছে। গতকালকেও সীমান্তে মানুষ হত্যা করা হয়েছে। সরকারের নতজানু পররাষ্ট্র নীতিই এজন্য দায়ী।

সরকারের কর্মকান্ডের কঠোর সমালোচনা করে তিনি বলেন, এই সরকার হচ্ছে গরুর গাড়ির হেডলাইট। তারা গরুর গাড়ির গতিতে চলে।

যেখানে দরকার সেখানে তারা নেই, অন্য জায়গায় আছে। আমরা বলব- অবিলম্বে পেঁয়াজসহ সকল নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমানোর ব্যবস্থা করেন।

নইলে আপনাদের মেয়াদ কমানোর ব্যবস্থা হবে। যদি দ্রব্যমূ্ল্য না কমান, মানুষের জীবনের দুর্ভোগ না কমান, আপনাদের ক্ষমতায় টিকে থাকার মেয়াদ আমরা কমিয়ে দেবো।

সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের উদ্যোগে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি, সীমান্তহত্যা বন্ধসহ আগ্রাসনের প্রতিবাদে এই মানববন্ধন হয়।

মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাতের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাদেক আহমেদ খানের পরিচালনায় মানববন্ধনে বিএনপির শিরিন সুলতানা,

অধ্যক্ষ সেলিম ভুঁইয়া, গণফোরামের মোশতাক আহমেদ, ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নূরসহ মুক্তিযোদ্ধা দল ও মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের নেতারা রাখেন।

আমাদের ফেসবুক পেজ লাইক করুন: https://www.facebook.com/Polnewsbd/

Tags

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

17 − thirteen =

Back to top button
Translate »
Close
Close