বিএনপিলীডশ্রমিক দল

বেশি আনুগত্যের ফল পাচ্ছে প্রশাসন: রিজভী

‘সরকার দুই চোখ কানা করে বসে আছে’

১৩ অক্টোবর ২০২০।। ১৩.০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, দেশের বর্তমান প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আওয়ামী লীগ সরকারের প্রতি এতো বেশি আনুগত্য দেখিয়েছে যে তার ফল এখন পাচ্ছে।

তাদেরকে আওয়ামী লীগের কেউ চড় থাপ্পর মারলেও কিছু বলছে না। এখন তার ফল পাচ্ছে। প্রতিদিনই গালমন্দ খাচ্ছে।

আরো পড়ুন:সরকারের ছত্রছায়ায় ধর্ষণ মহামারী রুপ ধারণ করেছে: রিজভী

অর্থাৎ এই দেশ আর মানুষের নেই। এখন পাপিয়া আওয়ামী লীগের হয়ে গেছে। দেশ এখন ফর দ্যা আওয়ামী লীগ, বাই দ্যা হাসিনা হয়ে গেছে।

দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সাথে সরকারের এমপি-মন্ত্রী ও ব্যক্তিদের আচরণের প্রেক্ষিতে রুহুল কবির রিজভী এসব বলেন।

এছাড়া সরকারের প্রশ্রয়ে ছাত্রলীগ যুবলীগ নারীর সম্ভ্রমহানি ও অপকর্ম করছে। তারা রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় এসব করছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) দুপুরে এক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের চরিত্র হনন করে ইনডেমনিটি নাটক প্রচার,

সারাদেশে ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতন এবং নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যের লাগামহীন মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে এই মানববন্ধনের আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল।

মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন হয়।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, সারাদেশে ছাত্রলীগ, যুবলীগের নেতাকর্মীরা নারীর সম্ভ্রমহানি, শ্লীলতাহানি, অন্যায় অপকর্ম মহামারী লাগিয়েছে।

আজকে দেশে আইনের শাসন থাকলে করতে পারতো না। আজকে ছাত্রলীগের ছেলেদের মধ্যে অপকর্ম করার প্রবণতা বেশি।

যুবলীগের ছেলেদের মধ্যে ক্যাসিনো করার, নারীর প্রতি শ্লীলতাহানির প্রবণতা বেশি? কারণ তারা রাষ্ট্র থেকে মদদ পায়।

তা না হলে এ ধরনের নারী নির্যাতন, টাকা পাচার ও ক্যাসিনো ব্যবসায় করতো না। তারা জানে যে, তারা যত অপকর্মই করুক সরকার তাদেরকে বাধা দিবে না।

কেননা ওরাই তো বিএনপির মিছিলে আক্রমণ করে। ওরাই তো বিশ্বজিতকে হত্যা করেছে। সরকারের কাজে লাগছে তো।

সানাউল্লাহ নূর বাবুর মতো নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যা করেছে। এই যে তাদের কৃতিত্ব। এই কৃতিত্বের কারণেই তারা নারীর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ছে।

রিজভী বলেন, সরকার আজকে ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদন্ড করেছেন। আগে যেই আইন ছিলো সেটির প্রয়োগ ঘটেনি।

এখন নতুন আইনের মাধ্যমে জনগণের দৃষ্টি ভিন্নদিকে নিতে চাইছে সরকার। আগের আইনেই তো সাতটি ধারা ছিল মৃত্যুদন্ডের।

কারণ ইউএনও, ডিসি সহ কেউ আপনাদের কথার বাইরে একচুল নড়েনি। সমস্ত আইন কানুন বিসর্জন দিয়ে তারা সরকারকে সমর্থন দিয়েছে।

তিনি বলেন, সরকার হচ্ছে ক্ষমতার লোভী। আওয়ামী লীগের রক্ত লোহার মতো শক্ত। সেজন্যই তো তোরা যে যা বলিস ভাই আমার সোনার ক্ষমতা চাই।

তাদের যদি ক্ষমতা থাকে এই নারী নির্যাতন, শিশু নির্যাতন, টাকা লুট যাই বলেন না কেনো? এসব কোনো কাজে লাগবে না।

কারণ আমি বলে ফেলেছি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আমার কথার বাইরে যেতে পারবে না।

রিজভী বলেন, বর্তমান প্রশাসন সরকারকে এতো আনুগত্য দেখিয়েছে যে তাদেরকে আওয়ামী লীগের কেউ চড় থাপ্পর মারলেও কিছু বলছে না।

প্রশাসন এখন তার ফল পাচ্ছে। প্রতিদিনই গালমন্দ খাচ্ছে। এখন এজন্যই নারী নিপীড়ন, শিশু নিপীড়ন ও খাদ্যের মূল্য বেড়েছে। কেউ কিছু বলছেনা।

দেশে আলুর কেজি ষাট টাকা। চালের দাম ষাট টাকা। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বিদ্যুতের শকের মতো। ধরলেই শক করে। এগুলো নিয়ে কেউ কোনো কথা বলেনা।

ফরিদপুরে এমপি নিক্সন চৌধুরী ইউএনও ও ডিসিকে কি ভাষায় কথা বলেছে তা এখন ভাইরাল। পাবনায় উপজেলা চেয়ারম্যান টিএনওকে মারতে গেছে।

আসলে আজকে দেশে আইনের শাসন নেই বলেই এসব করছে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, আজকে স্বাধীনতার ইতিহাসে আওয়ামী লীগের কারো নাম নেই বলেই তারা জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে কুৎসা রটিয়েছে।

আরে স্বাধীনতার ইতিহাসে তো শহীদ জিয়াউর রহমানের অবদান আষ্টেপৃষ্ঠে সম্পৃক্ত।

এসব বস্তাপচা নাটক তৈরি করা হচ্ছে কেবল হালুয়া রুটির ভাগ পাওয়ার জন্য। এরমাধ্যমে জনগণকে বিপদের দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসাইনের সভাপতিত্বে ও প্রচার প্রকাশনা সম্পাদক মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জুর পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল, সহ শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন ইসলাম খান, ফিরোজ উজ জামান মামুন মোল্লা সহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

আমাদের ফেসবুক পেজ লাইক করুন: https://www.facebook.com/Polnewsbd/

Tags

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five − one =

Back to top button
Translate »
Close
Close