কৃষক দলবিএনপি

দলীয় নেতাদের সুস্থতার জন্য কৃষকদলের দোয়া মাহফিল

১৭ অক্টোবর ২০২০।। ১৬.০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

দলীয় নেতাদের সুস্থতার জন্য কৃষকদলের উদ্যোগে দোয়া মাহফিল হয়েছে। শনিবার (১৭ অক্টোবর) দুপুরে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই অনুষ্ঠান হয়।

মূলত বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর সুস্থাতা কামনায় এই দোয়া মাহফিল হয়।

কৃষক দলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান দুদুর সভাপতিত্বে দোয়া মাহফিলে অংশগ্রহণ করেন কৃষক দলের সদস্য সচিব হাসান জাফির তুহিন।

এছাড়া কৃষক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক এবং বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী, নির্বাহী কমিটির সদস্য শাহ মোহাম্মদ নেছারুল হক,

কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এসকে সাদি, মাইনুল ইসলাম, আলিম হোসেন, কৃষিবিদ মেহেদী হাসান পলাশ, লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার,

আব্দুর রাজি, শফিকুল ইসলাম, মীর মমিনুর রহমান সুজন, এম জাহাঙ্গীর আলম জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের মো: সুমন হোসেন প্রমুখ।

আরো পড়ুন: রিজভীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি

শামসুজ্জামান দুদু বলেন, দেশে গণতন্ত্র ফি‌রিয়ে আনতে বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত বাতাসে ঘুরতে দিতে হবে।

বর্তমানে দেশে রাজনৈতিক যে সংকট তৈরি হয়েছে, সেই সংকট কাটিয়ে উঠতে হলে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ছাড়া অন্য কোনো পথ নেই।

গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হলে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে। জবাবদিহিতাও নিশ্চিত হবে।

আইনের শাসন ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হলে অপরাধীরা যে কোনো দলেরই হোক তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশ বা আইন শৃঙ্খলাবাহিনী দ্বিধাবোধ করবে না।

তিনি বলেন, অবৈধ সরকার প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়ার অপচেষ্টা লিপ্ত রয়েছে।

দেশে গণতন্ত্র না থাকা এবং প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, বিচার ব্যবস্থার প্রতি মানুষের বিশ্বাস ফেরানোর জন্য দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা দরকার।

দুদু বলেন, দেশে আইনের শাসন থাকলে সুবিচারের প্রশ্ন আসতো না। দেশে গণতন্ত্র থাকলে সুবিচারের প্রশ্ন আসতো না।

দেশে যে কারণে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল, তার চেতনা থাকলে সুবিচারের প্রশ্ন আসতো না।

বাংলাদেশকে সারা বিশ্বের কাছে স্বৈরাতান্ত্রিক দেশ হিসেবে পরিচিত করেছে এই সরকার।

তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে এখনো গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে।

অসুস্থতার কারণে চিকিৎসা দেয়ার কথা বলে বাসায় নেয়া হলো।

বাসায় যাওয়ার পরও তিনি চিকিৎসা পাননি। তাকে বিদেশে যাওয়ার কথা বললেও সরকার তা আমলে নেয়নি।

দুদু বলেন, আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমানও নির্যাতনের শিকার। তিনিও শারীরিকভাবে সুস্থ নন।

আজকে আমাদের দলীয় কার্যালয়ে যিনি সার্বক্ষণিক সময় দেন সেই রুহুল কবির রিজভীও অসুস্থ। এভাবে আমাদের দলের অনেক নেতাকর্মী নানা রোগে আক্রান্ত।

অনেককেই হারিয়েছি। অনেকেই অসুস্থ। আমরা সবার জন্যই দোয়া করি।

যারা মারা গেছেন তাদেরকে যেন আল্লাহ বেহেশত নসিব করেন। আর যারা অসুস্থ আল্লাহ যেন তাদেরকে সুস্থতা দান করেন।

আজকে অবিচারের অন্যায়ের মুখোমুখি আমরা। এমতাবস্থায় ঘরে বসে থাকার সময় নেই।

শহীদ জিয়া, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সৈনিক যারা তারা ঘরে বসে থাকতে পারেনা। যে যেখানে আছি প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নামতে হবে।

সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বীর উত্তম ও তার কনিষ্ঠপুত্র আরাফাত রহমান কোকো সহ

যে সকল নেতৃবৃন্দ মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের রুহের মাগফেরাত কামনা এবং বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান,

মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ সারাদেশের সকল নেতৃবৃন্দের রোগ মুক্তি ও সুস্থতার জন্য বিশেষ দোয়া করা হয়।

ফেসবুক পেজ লাইক করুন: https://www.facebook.com/Polnewsbd/

Tags

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen − 13 =

Back to top button
Translate »
Close
Close