বিএনপিলীড

দুদকের মামলায় কারাগারে ব্যারিস্টার মীর হেলাল

২৭ অক্টোবর ২০২০।। ১৪.২০

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মীর হেলাল উদ্দিনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

অবৈধ সম্পদ অর্জনের দায়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় উচ্চ আদালতের রায় অনুযায়ী নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

একই মামলার অপর আসামি হেলালের বাবা মীর মো: নাছির উদ্দিন আগামী সপ্তাহে আত্মসমর্পন করবেন বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) সকালে ব্যারিস্টার মীর হেলাল ঢাকা দ্বিতীয় যুগ্ম জেলা জজের আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

এসময় তার আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদারসহ বিএনপিপন্থী বেশ কয়েকজন আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।

আরো পড়ুন: মির্জা ফখরুল সহ ৫ নেতার মামলার স্থগিতাদেশ বহাল

উল্লেখ্য যে, জরুরি অবস্থার সময় অবৈধ সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন ও তার ছেলে মীর হেলালের বিরুদ্ধে ২০০৭ সালের ৬ মার্চ গুলশান থানায় দুদক মামলা করে।

এ মামলায় বিশেষ জজ আদালত একই বছরের ৪ জুলাই দেওআ রায়ে মীর নাছিরকে ১৩ বছর এবং মীর হেলালকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেন।

রায়ের বিরুদ্ধে তারা হাইকোর্টে আপিল করেন। হাইকোর্ট ২০১০ সালের ১০ আগস্ট মীর নাছিরের এবং একই বছরের ২ আগস্ট মীর হেলালের সাজা বাতিল করে রায় দেন।

আরো পড়ুন:ব্যারিস্টার মীর হেলালকে কারাগারে প্রেরণে ইউট্যাবের নিন্দা

দুর্নীতি দমন কমিশন হাইকোর্টের এ রায় বাতিল চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আপিল আবেদন করে।

আপিল বিভাগ ২০১৪ সালের ৩ জুলাই এক রায়ে হাইকোর্টের রায় বাতিল করে পুনরায় হাইকোর্টেই বিচার করার নির্দেশ দেন।

ওই নির্দেশে পুনরায় শুনানি শেষে ১৯ নভেম্বর ২০১৯ রায় দেন হাইকোর্ট। ওই রায়ে নিম্ন আদালতের দেওয়া সাজা বহাল রাখে হাইকোর্ট।

হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয় চলতি বছরের ৬ জানুয়ারি।

১৫৯ পৃষ্ঠার এ রায়ে তাদের রায়ের অনুলিপি পাওয়ার তিন মাসের মধ্যে তাদের নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়।

কিন্তু তারা আত্মসমর্পণ না করেই হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ ১৫ অক্টোবর এক আদেশে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার অনুমতির আবেদন খারিজ করে দেন।

আবেদন খারিজ হওয়ায় হাইকোর্টের রায় অনুযায়ী নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে হলো।

মঙ্গলবার মীর হেলাল আত্মসমর্পন করে জামিন আবেদন করলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠান।

তিনি এর আগে এই মামলায় আড়াই বছর কারাভোগ করেছেন। নিয়ম অনুযায়ী তার আর ছয় মাস কারাভোগ করলেই তিনি এই মামলার পূর্ণসাজা ভোগ করে খালাস পাবেন।

এই মামলায় ১৩ বছরের সাজাপ্রাপ্ত অপর আসামি মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন বিএনপি-জামায়াত সরকারের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

কখন আত্মসমর্পণ করবেন জানতে চাইলে তিনি আগামী সপ্তাহে আত্মসমর্পন করবেন বলে জানান।

নাছির আরো জানান, এই মামলায় আমরা একবার বেকসুর খালাস পেয়েছিলাম। সরকার আপীল করে সাজা বহাল করেছেন।

আর আমি এই মামলায় দুই বছর নয় মাস একদিন কারাভোগ করেছি।  এক-এগারোর সরকার আওয়ামী লীগের নেতাদেরও একইভাবে মামলা দিয়েছিল।

আমরা সাজা খাটতে জেলে যাচ্ছি, আর তারা এখন মন্ত্রীপরিষদে।

ফেসবুক পেজ লাইক করুন: https://www.facebook.com/Polnewsbd/

Tags

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen + 12 =

Back to top button
Translate »
Close
Close