বিএনপিমহিলা দললীড

বর্তমানে কোথাও কারো কোনো নিরাপত্তা নেই: রিজভী

‘প্রধান বিচারপতির বক্তব্য সঠিক, কিন্তু প্রশ্ন’

০৮ মার্চ ২০২১।। ১৪.১৫

বিশেষ প্রতিবেদক

বর্তমানে কোথাও কারো কোনো নিরাপত্তা নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, আমাদের সন্তানের নিরাপত্তার জন্য, সবার জন্য এ সরকারের পতন ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।

সোমবার (০৮ মার্চ) সকালে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের শোভাযাত্রা পূর্ব সমাবেশে রিজভী এই মন্তব্য করেন।

নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল এই র‌্যালী করে। কাকরাইল নাইটেঙ্গল রেস্তোরা হয়ে বিএনপি কার্যালয়ে এসে শোভাযাত্রাটি শেষ হয়।

আরো পড়ুন: এক লাখ লোক বের হলে সরকারের খবর হবে: মান্না

মহিলা দলের নেতা-কর্মীরা ‘নারী নির্যাতন বন্ধ কর’, ‘বিনামূল্যে বেতনে পড়ালেখার সুযোগ নারীদের জন্য খালেদা জিয়ার উদ্যোগ’সহ বিভিন্ন শ্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে এই র‌্যালীতে অংশ নেন।

নারীর নিরাপত্তা রিজভী বলেন, আজকে আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে তনু, মিতু, রাফিদের মতো অগণিত নারীর আর্তনাদ ভেসে আসছে।

খবরের কাগজের পাতা খুলে শুধু নারী নির্যাতনের খবর ছাড়া আপনারা কিছুই দেখবেন না। জাতি হিসেবে আজ আরো সোচ্চার হয়ে রাস্তায় নামতে হবে।

কোথাও কারও কোনো নিরাপত্তা নেই। আপনার-আমার সন্তানেরও নিরাপত্তা নেই। সন্তানের নিরাপত্তার জন্য এ সরকারের পতন ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, আইয়ুব খান উন্নয়নের দশক করেছিল, স্বৈরাচারী শাসকের উন্নয়নের দশক। আর শেখ হাসিনার উন্নয়নের একযুগ আমরা দেখলাম। সেই উন্নয়ন হচ্ছে নারী নির্যাতনের উন্নয়ন।

বর্তমান সময়ে আমরা সরকারের লোকজনের কাছ থেকে অনেক কথা শুনি। উন্নয়নের চাকচিক্যের কথা শুনি।

কিন্তু উন্নয়নের চাকচিক্যের আড়ালে কত নারীর বোবা কণ্ঠ, কখন নারী-শিশুর গোঙানির শব্দ এই আমলে হয়েছে তার হিসাব নেই।

কার কথা বলব! মিতুর কথা বলবো না তনুর কথা বলব, না খাদিজার কথা বলব! এগুলো বলে শেষ করা যাবে না।

প্রধান বিচারপতির বক্তব্য প্রসঙ্গ

প্রধান বিচারপতির বক্তব্য প্রসঙ্গে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, পত্রিকার খবরটি আমার কাছে বিস্ময়কর মনে হয়েছে।

মাননীয় প্রধান বিচারপতি ডিজিটাল নিরাপত্তা আাইনের একটি মামলার শুনানিতে বলেছেন, অনেক কথা বলেছেন।

প্রধান বিচারপতি আদালতের পাঠ্যক্রমের মধ্যে এটা উনি বলতেই পারেন এবং তিনি যে পরামর্শ যেটা দিয়েছেন সেটা শিরোধার্য।

কিন্তু এটি যখন গণমাধ্যমে আসে, তখন যদি কিছু পাবলিক ডিবেট তৈরি হয়। এটা তো অবশ্যই তৈরি হতে পারে।

তিনি বলেছেন, সামাজিক গণমাধ্যমে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দেয়া ঠিক নয়। আপনার এই পরামর্শ সঠিক।

আমি এটা অস্বীকার করছি না। আবার বলছেন যে, অন্যান্য দেশেও ব্যাঙ্গচিত্র হয় কিন্তু বাংলাদেশেও ব্যাঙ্গ চিত্র ভিন্নরকম।

তিনি বলেন, আমি একটা প্রশ্ন রাখতে চাই মাননীয় প্রধান বিচারপতি। যখন কোনো নাগরিকের কথা বলা, কোনো নাগরিকের মুক্ত কন্ঠে আওয়াজ তোলা, কোনো নাগরিকের কোন চিত্রাঙ্কন সে যদি করে, ব্যাঙ্গচিত্র করে, তাকে যদি সরকারি হেফাজতে খুন করা হয় তাহলে সেটাতে কি দেশের ভাবমূর্তি বৃদ্ধি পায় কিনা- এটা তো জনগণ জানতেই পারে।

আপনি প্রধান বিচারপতি। আপনি যে অভিমতগুলো দিয়েছেন সেটা অবশ্যই শিরোধার্য। এই যে কথা বলেছেন যে, দেশের ইমেজ ক্ষুন্ন হয় ব্যাঙ্গচিত্র করলে।

কিন্তু মানুষ খুন করলে, এই কথা বলার জন্য, এই কার্টুন আঁকার জন্য তাদেরকে যদি সরকারি হেফাজতে খুন করা হয় তাতে কী দেশের ইমেজ বাড়ে।

পুলিশ বাহিনীকে ‘দলীয়করণ’ এবং পুলিশ প্রধানের সাম্প্রতিক বক্তব্যের সমালোচনা করেন রিজভী।

সভাপতির বক্তব্যে মহিলা দলের সভানেত্রী আফরোজা আব্বাস বলেন, আজকে এই সরকারের আমলে আমরা নারীরা সবচেয়ে বেশি অবহেলিত, বঞ্চিত ও নির্যাতিত। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে আমাদেরকে অবশ্যই জেগে উঠতে হবে।

গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মানে গণতন্ত্র, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মানে বাংলাদেশ।

আসুন গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করতে হলে আমাদেরকে আবার আরেকটা মুক্তিযুদ্ধ করতে হবে। এই আন্তজাতিক নারী দিবসে আমাদের অঙ্গীকার হোক- আসুন আরেকটা মুক্তিযুদ্ধ করি।

মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদের পরিচালনায় র‌্যালীপূর্ব সমাবেশে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, মহিলা দলের সাবেক সভাপতি নুরী আরা সাফা, মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খান, কেন্দ্রীয় নেত্রী নেওয়াজ হালিমা আরলি, নিলোফার চৌধুরী মনি ও জাহান পান্না বক্তব্য রাখেন।

ফেসবুক পেজ লাইক করুন: https://www.facebook.com/Polnewsbd/

আমাদের টুইটার প্রোফাইল ফলো করুন: https://twitter.com/BdPolitical

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seven − 2 =

Back to top button
Translate »