জাতীয় পার্টিলীড

এরশাদের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী ঘিরে জাতীয় পার্টিতে নতুন জটিলতা

১৪ এপ্রিল, ২০২১ ।। ২২.০৪

নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে নেতৃত্ব নিয়ে দলটিতে নতুন জটিলতা দেখা দিয়েছে। বেগম রওশন এরশাদকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা করায় এ জটিলতার সৃষ্টি হয়। এরশাদের মৃত্যুর পর নানা নাটকীয়তা শেষে ছোট ভাই গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদেরকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এবং বড় স্ত্রী রওশন এরশাদকে পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক করা হয়। একইসঙ্গে রওশনকে জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা এবং কাদেরকে বিরোধীদলীয় উপনেতা করা হয়। তারপর থেকে জাতীয় পার্টি সুশৃঙ্খলভাবেই তাদের দলীয় কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছিল।

এমন প্রেক্ষাপটে বুধবার (১৪ জুলাই) এরশাদের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তার ছেলে এরিক এরশাদ জাতীয় পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক বেগম রওশন এরশাদকে পার্টির চেয়ারম্যান এবং মা বিদিশা এরশাদ ও ভাই রাহগীর আল মাহি সাদকে (সাদ এরশাদ) পার্টির কো-চেয়ারম্যান ঘোষণা করেছেন। তবে এই বিষয়ে কিছু জানেন না বলে দুপুরে কাকরাইলে পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এক অনুষ্ঠানে জানিয়েছেন দলটির বর্তমান চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের।

এরিক এরশাদের নতুন ‘জাতীয় পার্টির’ ঘোষণা সম্পর্কে কাদের বলেন, ‘দেশের সংবিধান অনুযায়ী যে কেউ রাজনৈতিক দল করতে পারে। তবে একজন ব্যক্তি একসাথে দুটি দল করতে পারেন না। রাজনৈতিক দল কেউ করলেই হবে না। নির্বাচন কমিশন থেকে সেই দলের নিবন্ধনও নিতে হবে।’ রওশন এরশাদকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা করার জবাবে তিনি আরও বলেন, কে কাকে কী ঘোষণা দিয়েছে- তা জানি না। যে কেউ যেকোনো ঘোষণা দিতে পারে।

এর আগে সকালে বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কে জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ‘হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ট্রাস্টি বোর্ডের’ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় তার ছেলে এরিক এরশাদ বেগম রওশন এরশাদকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এবং মা বিদিশা এরশাদ ও ভাই রাহগীর আল মাহি সাদকে (সাদ এরশাদ) পার্টির কো-চেয়ারম্যান ঘোষণা করেন।

এরিক এরশাদ বলেন, আমার বাবা যখন অসুস্থ তখন রাতে আমার বাবাকে জিম্মি করে আমার চাচা জি এম কাদের দলের দায়িত্বে চেয়ারম্যান পদ লিখিয়ে নিয়েছেন। জাতীয় পার্টি আজ ধ্বংসের মুখে। তিনি অবৈধভাবে চেয়ারম্যান পদটি নিয়েছেন, আমরা তাকে মানি না।

অনুষ্ঠানে রাহগীর আল মাহি সাদ (সাদ এরশাদ) বলেন, আমরা জঞ্জালমুক্ত থাকতে চাই। এই দিনে বাবার জন্য দোয়া করতে চাই। সবার কাছে দোয়া চাই।

এদিকে কাকরাইলে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এরশাদের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ অনুষ্ঠানে জিএম কাদের এ বিষয়ে তার প্রতিক্রিয়া জানান। তিনি বলেন, কে কাকে কী ঘোষণা দিয়েছে তা জানি না। যে কেউ যেকোনো ঘোষণা দিতে পারে।

অনুষ্ঠানে জাপা নেতা ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, জেনারেল এরশাদ একজন সামরিক ব্যক্তি হয়েও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করে গেছেন। আজকে দেশের গণতন্ত্র নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। দেশের নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ।

তিনি বলেন, একদিকে মেগা প্রকল্পের কথা বলা হচ্ছ। আবার বলা হচ্ছে টাকার কোনো সমস্যা নেই। তাহলে করোনা পরিস্থিতিতে কেন ২০ হাজার কোটি টাকা অসহায় মানুষদের জন্য দেওয়া যাবে না। তাই বলতে চাই, কালক্ষেপণ না করে এখনই বাস্তব পদক্ষেপ নিন।

দলটির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার উদ্যোগে এ খাবার বিতরণ করা হয়।

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী ছিল ১৪ জুলাই। এ উপলক্ষে দলীয়ভাবে দেশব্যাপী মিলাদ মাহফিল, দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণসহ নানা কর্মসূচি পালিত হয়।

রাজধানীর কাকরাইলে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে খাদ্য বিতরণের এই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন- পার্টির চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের, দলের কেন্দ্রীয় নেতা ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, সাইদুর রহমান টেপা, দলটির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, মজিবুল হক চুন্নু, যুগ্ম-মহাসচিব শাহিদা রহমান রিংকু, মহিলা পার্টির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান রিতু নূর, মহিলা পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান শারমিন পারভিন লিজাসহ দলের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা।

ফেসবুক পেজ লাইক করুন: https://www.facebook.com/Polnewsbd/

আমাদের টুইটার প্রোফাইল ফলো করুন: https://twitter.com/BdPolitical

পিএনবি/আরএন.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × 1 =

Back to top button
Translate »