আরো সংবাদবিশ্ব রাজনীতিলীড

বাংলাদেশকে ২৯ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দিচ্ছে জাপান

১৪ জুলাই ২০২১।। ১৫.৩০

নিজস্ব প্রতিবেদক

মহামারী করোনা ভাইরাস ঠেকাতে জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২৯ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন পাচ্ছে বাংলাদেশ।

জাপানের রাষ্ট্রদূত নাওকি ইটো এক টুইট বার্তায় এ কথা জানিয়েছেন।

জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোটেগি গত মঙ্গলবার ১৫টি দেশকে ১ কোটি ১০ লাখ টিকা কোভ্যাক্সের আওতায় দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেন। তার ঘোষণার পরই রাষ্ট্রদূত ওই টুইট করলেন।

আরো পড়ুন: জাপান যুবদলের উদ্যোগে কর্মী সংগ্রহ ও কর্মী সম্মেলন

টুইট বার্তায় তিনি বলেন, বাংলাদেশে খুব শিগগিরই ২৯ লাখ অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা পাঠানো হবে। কোভিড মোকাবিলায় বাংলাদেশের পাশে আছে জাপান।

বাংলাদেশে প্রায় ১৫ লাখ মানুষ অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছে কিন্তু দ্বিতীয় ডোজ নিতে পারেনি। তাদের জন্য এই টিকা খুব কাজে আসবে।

এরআগে শনিবার (১০ জুলাই) বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছিলেন, মহামারী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বাণিজ্যিকভাবে চীনের সিনোফার্মের সঙ্গে করা চুক্তি অনুয়ায়ী আগামী তিন মাসে বাংলাদেশ আরো ভ্যাকসিন পাবে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে এক ভিডিও বার্তায় এ কথা জানান।

তিনি বলেন, আগামী ৩ মাসের জন্য আমরা চীনের সঙ্গে চুক্তি করেছি, আমরা সেই ভ্যাকসিনগুলো পাব।

আমরা ভ্যাকসিনের সরবরাহটা নিশ্চিত করেছি। ইতোমধ্যে প্রায় ৪৫ লাখ ভ্যাকসিন এনেছি। যুক্তরাষ্ট্র ২৫ লাখ দিয়েছে, চীন থেকে পয়সা দিয়ে ২০ লাখ কিনেছি।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, চীনের সিনোফার্ম থেকে বাণিজ্যিকভাবে দেড় কোটি ডোজ ভ্যাকসিন কিনছে সরকার।

যার মধ্যে ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ইতোমধ্যে ঢাকায় পৌঁছেছে। বাকি ভ্যাকসিন দেশে আনার বিষয়ে সিনোফার্মের সঙ্গে আলোচনা চলছে। আশা করা হচ্ছে আগামী তিন মাসের মধ্যে অবশিষ্ট ভ্যাকসিন বুঝে পাবে বাংলাদেশ।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে বাংলাদেশ কোভ্যাক্সের আওতায় ১০ লাখ ভ্যাকসিন পাবে উল্লেখ করে ড. মোমেন বলেন, আমরা ইইউ থেকে ১০ লাখ ভ্যাকসিন পাব।

সেটা কোভ্যাক্সের আওতায় অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন পাব। যারা প্রথম ডোজ নিয়েছিলেন তারা এটা এলে নিতে পারবেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রত্যাশা পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, আমার সঙ্গে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আলাপ হয়েছে। তিনিও আমাকে ভ্যাকসিন দেবেন বলেছেন। জাপান ২৫ লাখের বেশি ভ্যাকসিন দেবে।

কতগুলো দেবেন সঠিক সংখ্যাটা বলেননি। আমি আশা করি, ২৫ লাখের নিচে না, আরো বেশিও হতে পারে।

এগুলো কোভ্যাক্সের আওতায় হবে। এগুলোর জন্য কোনো টাকা দিতে হবে না।

অস্ট্রেলিয়া থেকেও ভ্যাকসিন আনার বিষয়ে সরকার আলাপ করছে বলেও ভিডিও বার্তায় জানান ড. মোমেন। সেইসাথে রাশিয়া থেকেও ভ্যাকসিন আনার বিষয়ে সরকার চুক্তি চূড়ান্ত করে ফেলেছে বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ভ্যাকসিনের যৌথ উৎপাদনে চায়না ও রাশিয়ার সঙ্গে আলাপ করছে সরকার। আলোচনা বেশ অগ্রসর হয়েছে।

দেশবাসীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানিয়ে ড. মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দেশের ৮০ ভাগ মানুষের ভ্যাকসিন নিশ্চিত করা হবে।

সবাইকে টিকা তো দেবেন, তবে সবচেয়ে বড় কথা হলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। সবাই মাস্ক পরবেন, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলবেন, এগুলো না করলে কিন্তু ভ্যাকসিনে কাজ হবে না।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী অভিযোগ করে বলেন, সিলেট এলাকার লোকেরা স্বাস্থ্যবিধি মানেন না। আমি শুনেছি সিলেটে আক্রান্তের হার ৪৮ শতাংশ বেড়েছে।

সারাদেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি, এটা দুঃখজনক। আমি সিলেটবাসীকে অনুরোধ করব, আপনারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। না হলে অনেক বিপদ হবে।

ফেসবুক পেজ লাইক করুন: https://www.facebook.com/Polnewsbd/

আমাদের টুইটার প্রোফাইল ফলো করুন: https://twitter.com/BdPolitical

পিএনবি/এসআই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fourteen − seven =

Back to top button
Translate »